শিরোনাম:

মূল্যস্ফীতি ঊর্ধ্বমুখী

BDcost Desk:


 

দেশে মূল্যস্ফীতি আবারো ঊর্ধ্বমুখী। শহরে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বৃদ্ধি পেলেও পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্যানুযায়ী শহরে মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির হার সেপ্টেম্বরের চেয়ে কম। অক্টোবর মাসে সার্বিক মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির হার পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৫৭ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল ৫ দশমিক ৫৩ শতাংশ। অন্য দিকে গত দুই মাস ধরে চাল, ডালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের মূল্য ঢাকায় অনেক বেশি ছিল। তারপরও শহরের মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির হার সেপ্টেম্বরের ৭.২১ শতাংশ থেকে কমে দাঁড়িয়েছে ৬.৮৭ শতাংশে।

রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কে এক ব্রিফিংয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বিবিএসের এ তথ্যগুলো প্রকাশ করেন।
বিবিএসের তথ্যানুযায়ী, সার্বিকভাবে খাদ্য পণ্যের মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির হার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৫৬ শতাংশে। সেপ্টেম্বর মাসে ছিল ৫ দশমিক ১০ শতাংশ। খাদ্যবহির্ভূত পণ্যে মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির হার কমে দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৫৮ শতাংশে, যা আগের মাসে ছিল ৬ দশমিক ১৯ শতাংশ।

অক্টোবরে গ্রামে সার্বিক মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির হার ৪ দশমিক ৮৭ শতাংশ, যা আগের মাসে ছিল ৪ দশমিক ৬৩ শতাংশ। খাদ্যপণ্যে মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির হার ৪ দশমিক ৮৯ শতাংশ, যা সেপ্টেম্বরে ছিল ৪ দশমিক ২৭ শতাংশ। খাদ্যবহির্ভূত পণ্যে মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির হার কমে দাঁড়িয়েছে ৪ দশমিক ৮৩ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল ৫ দশমিক ৩১ শতাংশ।

শহরে খাদ্যপণ্যের মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির হার ৭ দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ, যা তার আগের মাসে ছিল ৭ দশমিক শূন্য ৩ শতাংশ। খাদ্যবহির্ভূত মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির হার কমে দাঁড়িয়েছে ৬ দশমিক ৬৩ শতাংশে। এই হার সেপ্টেম্বরে ছিল ৭ দশমিক ৪২ শতাংশ। পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, শাকসবজি, চাল, তেল, চিনি, দুধ, লবণ ইত্যাদির দাম বাড়ায় মূল্যস্ফীতি কিছুটা বেড়েছে। এ জন্যই অক্টোবর মাসে মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির হার ঊর্ধ্বমুখী।
এডিপির বাস্তবায়ন ১৪ শতাংশ
চলতি (২০১৬-১৭) অর্থবছরের প্রথম চার মাসে (জুলাই-অক্টোবর) বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়নের হার ১৪ শতাংশ। টাকার অঙ্কে ব্যয়ের পরিমাণ ১৬ হাজার ৭৭২ কোটি টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে এ হার ১১ শতাংশ ছিল বলে জানান পরিকল্পনামন্ত্রী।

তিনি জানান, এডিপি বাস্তবায়ন আগের দুই অর্থবছরের চেয়ে বেড়েছে। এর মধ্যে বৈদেশিক সহায়তার চেয়ে দেশীয় অর্থের ব্যবহার বেশি হয়েছে। এডিবি বাস্তবায়নের হার বিগত ২০১৪-১৫ অর্থবছরের অক্টোবর পর্যন্ত ছিল ১৩ শতাংশ (১১ হাজার ২০০ কোটি টাকা)। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ১১ শতাংশ (১১ হাজার ৫০০ কোটি টাকা)। চলতি অর্থবছরে এ হার দাঁড়িয়েছে ১৪ শতাংশে (১৬ হাজার ৭৭২ কোটি টাকা)।


বিঃ দ্রঃ জাতীয়, আন্তর্জাতিক, লাইফস্টাইল, শিক্ষা, টেকনোলজি, খেলাধুলা, বিনোদন, ইত্যাদি। বাংলা নিউজ রেগুলার আপনার ফেসবুক টাইমলাইনে পেতে লাইক দিন আমাদের ফ্যান পেজ বিডিকষ্ট্

 

,

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Anti-Spam Quiz: